বৃহস্পতিবার, ২৮ অক্টোবর ২০২১, ০৪:২৬ পূর্বাহ্ন
নোটিশ :
সময়ের চোখ ডট নেট ওয়েবসাইটে আপনাদের স্বাগতম। আমাদের পাশে থাকার জন্য কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি। সময়ের চোখ ডট নেট অনলাইন নিউজ পোর্টালের কর্মরত সকল সাংবাদিকদের ই-মেইলে নিউজ পাঠাতে অনুরোধ করা হলো।
সংবাদ শিরোনাম ::
আরিফুর রহমান তালুকদার পথিকের নির্বাচনী উঠান বৈঠক অনুষ্ঠিত মুকসুদপুরের জলিরপাড়ে নারী লোভী মেম্বারে বিরুদ্ধে অভিযোগ মুকসুদপুরে আ.লীগের ‘উন্নয়নে মুগ্ধ হয়ে’ বিএনপি নেতা মাহফুজের পদত্যাগ আওয়ামী মৎস্যজীবি লীগের আয়োজনে সম্প্রীতি সমাবেশ ও শান্তি শোভাযাত্রা অনুষ্ঠিত ‌নির্বাচনী বি‌ধি লংঘন করায় সালথায় তিন প্রতিদ্বন্দী চেয়ারম্যান প্রার্থী‌কে শোকজ সালথায় নির্বাচনী আচরণ বি‌ধি লংঘন করায় দুই প্রার্থী‌কে শোকজ নিরোপেক্ষ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে কারো কোন হুমকি ধামকি চলবে না-পুলিশ সুপার আলিমুজ্জামান নগরকান্দায় ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে প্রার্থী যাচাই বাছাই সম্পন্ন ফরিদপুর হিন্দু পরিষদ ও জাতীয় হিন্দু মহাজোট উদ্যোগে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত । সাপাহারে ফাইনাল ফুটবল খেলা অনুষ্ঠিত

সাপাহারে হারিয়ে যাচ্ছে প্রাচীন ঐতিহ্য মাটির বাড়ি

  • আপডেট টাইম : বৃহস্পতিবার, ৭ অক্টোবর, ২০২১, ১.৫৪ পিএম
  • ১২৫ বার পঠিত

মনিরুল ইসলাম,সাপাহার(নওগাঁ)প্রতিনিধি:
মাটির প্রলেপে নানাবিধ আল্পনা! বাঁশ ও তালের কাঠের কোঠা! উপরে টিন বা ছনের ছাউনী। দক্ষিন দুয়ারী ঘরে বনবন করে বাতাস প্রবেশ করে যেন প্রাণটা শীতল করে দেয়। শীতকালে গরমের আভা আবার গ্রীষ্মকালের প্রচন্ড দাবদাহে ক্লান্তি দূর করার জন্য এক অপার শান্তির ছাঁয়া। বলছিলাম,“এসি” খ্যাত মাটির বাড়ির কথা। গ্রামীণ জনপদে বসবাস করার জন্য মাটির বাড়ি ছিলো তুলনাহীন। কিন্তু বর্তমানে ইট-পাথরের দুনিয়ায় আধুনিকতার ছোঁয়া লাগায় হারিয়ে যেতে বসেছে প্রাচীন ঐতিহ্য মাটির বাড়ী। অনেকে বসবাস করার জন্য মাটির ঘর ভেঙ্গে ইট-পাথর ও টাইলসের সমন্বয়ে গড়ছেন বাড়ি। নওগাঁর সাপাহারে প্রত্যন্ত অঞ্চলগুলোতে এখনো মাটির বাড়ি চোখে পড়লেও দিনের পর দিন হারিয়ে যেতে বসেছে এই প্রাচীন ঐতিহ্য।

বহুবছর আগে থেকে গ্রাম-গঞ্জে এমনকি শহরে বসবাসকারীরা মাটি-বাঁশ ও তালের কাঠের সমন্বয়ে গড়ে তুলতেন মাটির বাসস্থান। এঁটেল ও বেলে মাটির মিশ্রনে তৈরী হতো মাটির বাড়ি। একটি মাটির বাড়ি তৈরী করতে সময় লাগত ছয় মাসেরও বেশি। সামর্থ্য অনুযায়ী মাটির বাড়ীকে কেউবা বানাত দ্বিতল পর্যন্ত । বাড়ি তৈরী শেষে খড়ের চালা ও টিন দেওয়া হত ছাদে। বিভিন্ন নকশা ও মনোমুগ্ধকর কারুকার্য দিয়ে দর্শনীয় করে তুলত সেসব বাড়ি। বাড়ির দেয়াল তৈরী ও চালা দেবার পরে পথচারীদের দৃষ্টি আর্ষন করার জন্য বাইরের দেয়ালে ছাপানো হত নানা রকম নকশা। এছাড়াও বাড়ির প্রাচীরটাও দেওয়া হতো মাটি দিয়ে। বাড়ীর আঙ্গিনায় ও চারিপাশে লাগানো থাকতো নানা ধরণের বনজ-ফলদ ও ঔষধী গাছ। বাড়ি পাশে লাগানো হত ইউক্যালিপটাস, মেহগনী ,নিমগাছ সহ নানা ধরণের বৃক্ষ। যার সুশীতল ছায়ায় বাড়ি থাকতো ঠিক এসির মতো ঠান্ডা। আগের যুগের জমিদারগন মাটির বৈঠকখানায় বসে চালাতেন আমোদ-প্রমোদ সহ বিচারিক কার্যক্রম।
এসব বাড়ীর ভিতরে চৈত্র মাসের প্রখর দাবদাহেও থাকত শীতল আবহাওয়া।আবার প্রচন্ড শীতের মাঝেও উষ্ণতা অনুভব করত বসবাসকারীরা। এজন্যই ‘এসি’ নামে পরিচিত ছিল মাটি দ্বারা তৈরী বাড়ী। কিন্তু বর্তমান সময়ে আধুনিকতার ছোঁয়া লাগার ফলে ধীরে ধীরে হারিয়ে যেতে বসেছে সেইসব মাটির বাড়ী।
বর্তমান সময়ে প্রত্যন্ত গ্রামগুলোতেও দালান বাড়ী বানানোর জন্য মরিয়া হয়ে পড়েছেন এলাকার লোকজন। যেন পুরনো ঐতিহ্যকে জলাঞ্জলি দিয়ে নতুন আঙ্গিকে গড়তে চায় নিজেদের।
ইসলামপুর গ্রামের বৃদ্ধ ইসাহাক আক্ষেপের স্বরে বলেন, “বারে আগে মাটির বাড়িত মেলা শান্তি আচলো। পরে বেটারা ইটার বাড়ি বানাচে কিন্তু আগের মতন সুক-শান্তি নাই”।

এছাড়াও বয়োবৃদ্ধদের সাথে কথা হলে তিনারা আক্ষেপ করে জানান, বর্তমানে কলিযুগ আমার জন্যেই এ ধরণের অবস্থার সম্মুখীন হতে হচ্ছে তাদের। শুধু মাত্র মাটির বাড়ী নয় : বিভিন্ন ধরণের পুরনো ঐতিহ্য প্রায় বিলুপ্ত হয়ে যাচ্ছে। ভবিষ্যৎ প্রজন্ম মাটির বাড়ি সম্পর্কে হয়তোবা জানবেওনা এমন ধারণা করছেন বয়োবৃদ্ধরা।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

131d5763789044479a781faf3fa13867
© All rights reserved  2021 ‍SomoyerChokh
Theme Download From ThemesBazar.Com